ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

- মিরপুর ব্রাঞ্চ

  • কোর্সের মেয়াদ : ৬ মাস
  • কোর্স ফী : ২০০০০ টাকা
  • ক্লাসের সময় : শুক্রবার - সকাল ৯টা - ১টা
  • ক্লাস শুরুর তারিখ : ২৯শে অক্টোবর ২০২১

অভিজ্ঞতা অর্জন হয় দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে। আর দক্ষতাই পারে সাফল্যের শিখরে পৌঁছে দিতে। তাই সময় নষ্ট না করি, দক্ষতা বৃদ্ধি করি।

ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

একজন ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপারের কাজের ক্ষেত্র অনেক বড়। বিশ্বের ছোটো-বড় অধিকাংশ কোম্পানিরই নিজেদের একটি ওয়েবসাইট থাকে। এই ওয়েবসাইটগুলো বানানোর জন্য প্রয়োজন হয় একজন ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপার এর। দিন দিন ওয়েব ডেভেলপারদের চাহিদা বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসগুলোতে অনেক বেশী পারিশ্রমিকে তাদের জবে হায়ার করছেন কোম্পানিগুলো।

কোর্স ডিটেলস ভিডিও

১৫৭৫++

গ্রাডুয়েটস

১০৪ ঘন্টা

ক্লাস আওয়ার্স

৫২

লেকচার

২৪/৭

অনলাইন সাপোর্ট

আমাদের কোর্স কারিকুলাম

ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কোর্সটি ওয়েব এর একটি কমপ্লিট কোর্স। একটি ওয়েবসাইটের কাঠামো ডিজাইন থেকে শুরু করে এর ডাটাবেজ ম্যানেজমেন্ট, রেসপন্সিভ করা, সব কিছুই শেখানো হয় এই কোর্স। ফ্রন্ট এন্ড অংশে শেখানো হয় এইচটিএমএল, সিএসএস, বুটস্ট্র্যাপ, জেকুয়েরি। ব্যাক এন্ড অংশে থাকবে পিএইচপি, ওওপি এবং মাইএসকিউএল। এছাড়াও শেখানো হবে ওয়ার্ডপ্রেস কাস্টমাইজেশন এবং থিম ডেভেলপমেন্ট।

  • HTML & CSS
  • BS, JS & JQ
  • WordPress
  • PHP, MySQL
  • Freelancing
  • ০%
  • ২৫%
  • ৫০%
  • ৭৫%
  • ১০০%

HTML & CSS

এইচটিএমএল হচ্ছে “মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ” এবং সিএসএস হচ্ছে “স্টাইল।” কিন্তু এগুলো কোনো “প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ” নয়। এর মাধ্যমে আপনি একটি স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। এইচটিএমএল শেখার পর খুব সহজেই একটি ওয়েবসাইট এর কন্টেন্টের হেডিং, লিস্ট, বিভিন্ন নির্দেশিকা তৈরি করতে পারবেন। তার সাথে সিএসএস ব্যবহার করে সে ওয়েবসাইটে রং, মার্জিন, প্যাডিং ঠিক করতে হয়। এর করে ওয়েবসাইট-টি সম্পূর্ণ হলে কেমন দেখাবে তার সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। এই কোর্সের শুরুতেই শিক্ষার্থীদের বেসিক শক্ত করার জন্য প্রজেক্ট ভিত্তিক কাজ করে দেখানো হবে।

BS, JS & JQ

সাধারণত, বুটস্ট্র্যাপ হলো টাইপোগ্রাফি, ফরম, বাটন, টেবিল, নেভিগেশন, মোডাল, ইমেজ ক্যারোসেল এবং জাভাস্ক্রিপ্ট প্লাগ-ইন এর সমন্বয়ে এইচটিএমএল ও সিএসএস ভিত্তিক টেমপ্লেট ডিজাইন। জাভাস্ক্রিপ্ট এ যে কাজ করতে অনেকগুলো লাইন এর কোড বসিয়ে এবং মেথড এর মধ্যে দিয়ে করতে হয়, তা jQuery মাত্র একটি লাইন কোড এর মাধ্যমেই করতে পারে। এই দুইটি ল্যাঙ্গুয়েজ দিয়ে আপনি ওয়েবসাইটকে প্রাণবন্ত এবং রেসপন্সিভ করতে পারবেন। যেকোনো মেনুতে ক্লিক করলে অন্য পেইজে যাবে এবং বিভিন্ন রকম তথ্য দেখাবে। বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আমরা বিভিন্ন রকমের এনিমেশনের মতো কাজ দেখি, এই ধরনের প্রাণবন্ত আবহ নিয়ে আসে বুটস্ট্র্যাপ এবং জেকুয়েরি।

WordPress

এই অংশে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিএমএস ওয়ার্ডপ্রেস কাস্টমাইজেশন শেখানো হবে। এতে করে একজন শিক্ষার্থী ওয়ার্ডপ্রেস এর পেইড এবং ফ্রি থিম গুলোকে নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী সাজিয়ে নিতে পারবেন। এখানে শিক্ষার্থীরা শিখবেন কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে ব্লগ সাইট বানাতে হয়, কিভাবে ই-কমার্স সাই বানাতে হয়। এছাড়াও আপনি খুব সহজেই পার্সোনাল ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন ওয়ার্ডপ্রেস কাস্টমাইজেশনের মাধ্যমে। প্রজেক্ট বেইজড শিখার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, ফ্রিল্যান্সিং এর আগেই আপনার নিজের কিছু ইউনিক পোর্টফলিও তৈরি হয়ে যাবে, যা খুব সহজেই ক্লায়েন্ট এর কাছে উপস্থাপন করা যায়।

PHP, MySQL

“পিএইচপি এবং মাইএসকিউএল” যা ব্যবহার করে আপনি ওয়েবসাইট এর সম্পূর্ণ ডাটাবেজ তৈরি করতে পারবেন। জেনে রাখা ভালো, “পিএইচপি” হচ্ছে একটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ যার মাধ্যমে আপনি ডায়নামিক ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। “মাইএসকিউএল” হচ্ছে ডাটাবেজ ল্যাঙ্গুয়েজ যার মাধ্যমে ওয়েবসাইটের লক্ষ লক্ষ ডাটা সাজিয়ে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করে রাখা হয়। এতে করে তথ্যগুলো সুরক্ষিত থাকে এবং ঠিকভাবে কাজ করে।

Freelancing

প্রজেক্ট বেইজড লার্নিং শেষ করে প্রতিটি শিক্ষার্থী প্রবেশ করে ফ্রিল্যান্সিং সেশনে। এখানে শেখানো হবে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় দুইটি মার্কেটপ্লেস ফাইভার এবং আপওয়ার্কে কিভাবে কাজ করতে হয়। একাউন্ট খোলা থেকে শুরু করে গিগ তৈরি, কাজের জন্য বিড করা, ক্লায়েন্ট কমিউনিকেশন সহ সবকিছুই দেখানো হয় এই সেশনগুলোতে। পাশাপাশি কিভাবে নিজের প্রোফাইল বিভিন্ন স্যোশাল মিডিয়াতে ব্র্যান্ডিং করবে, তা নিয়েও ধারন দেয়া হবে। যাতে করে সম্পূর্ণ প্রোফাইল তৈরি করার পর একজন শিক্ষার্থী ভালো ভাবে কাজ করতে পারেন।

কোর্স মেন্টর

ওমর ফারুক

মেন্টর - ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

প্রশিক্ষণ দিয়েছেন : 400+

তিনি শিখবে সবাই এর একজন দক্ষ ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপমেন্ট মেন্টর। পাশাপাশি মেশিন লার্নিং সম্পর্কেও রয়েছে উনার পারদর্শিতা। এ পর্যন্ত শিখবে সবাইতে মেন্টর হিসেবে প্রায় ৪০০ এর অধিক শিক্ষার্থীর প্রশিক্ষনের সাথে জড়িত আছেন। শিক্ষার্থী বান্ধব মেন্টর হিসেবেই তিনি সকলের কাছে পরিচিত। মেন্টরিং এর পাশাপাশি কাজ করছেন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে। ফাইভার এবং আপওয়ার্ক, দুইটি মার্কেটপ্লেসেই সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও নিজের একটি টিম নিয়ে কাজ করছেন লোকাল বিভিন্ন প্রজেক্টে। শিক্ষাজীবনে তিনি একজন সিএসই গ্র্যাজুয়েট।

কোর্সটা কি আপনার জন্য?

আপনি কি একজন শিক্ষার্থী?

পড়াশোনার পাশাপাশি আইটি কাজের বাস্তবমুখী শিক্ষা একজন শিক্ষার্থীর বর্তমান এবং ভবিষ্যতকে উজ্জ্বল করবে এবং বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বা কাজের সুযোগ করে দিবে এতে কোন সন্দেহ নেই। বরং পড়াশোনার পাশাপাশি অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন খন্ডকালিন কাজ করতে চান। আইটি কোন কাজে দক্ষ হলে একজন শিক্ষার্থী পড়াশোনার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মার্কেটে কাজ করতে পারেন এবং নিজের পড়াশোনার খরচ নিজেই বহন করতে পারেন।

আপনি কি একজন গৃহিণী?

অনেক শিক্ষিত গৃহিণী গৃহস্থালির কাজের পাশাপাশি কোন কাজ করে আয় করতে চান। কিন্তু তারা চাইলেও নানা সমস্যার কারণে কোন চাকুরী বা ব্যাবসায় যুক্ত হতে পারেন না। তাদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে সবচেয়ে উপযুক্ত একটি মাধ্যম। একজন গৃহিণী আইটি দক্ষতা অর্জন করে প্রতিদিন বা সুবিধা মত সময়ে কাজ করে আয় এবং নিজের একটি পরিচয় তৈরি করতে পারেন।

আপনি কি একজন চাকুরীজীবী?

বর্তমানে চাকুরী করে অনেকেই হয়তো নিজের সকল প্রয়োজন মেটাতে হিমিশিম খাচ্ছে। অনেকে হয়তো চাকুরীই করতে চাচ্ছেন না, নিজের কিছু করতে চাচ্ছেন। অনেকে হয়তো চাকুরীর পরের সময় গুলো কাজে লাগাতে চাচ্ছেন। প্রতিদিন ৩/৪ ঘণ্টা সময় দিলে শিখবে সবাই এর যে কোন আইটি কোর্সের মাধ্যমে কাজ শিখে ফ্রিল্যান্সিং করে আপনার বাড়তি আয়ের চাহিদা মেটানো সম্ভব।

আপনি কি একজন উদ্যোক্তা?

আপনি যে কোন ব্যাবসা করেন না কেনো, আপনার বিভিন্ন আইটি কাজের প্রয়োজন হবেই। আপনার নিজের যদি ভালো কাজের আইডিয়া থাকে তবে সেটা অন্যের মাধ্যমে সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন। কিন্তু আপনি নিজে যদি কোন আইটি দক্ষতা না রাখেন, তাহলে বর্তমান সময়ে যে কোন ব্যাবসা বা নতুন কোন আইডিয়া নিয়ে কাজ করলে সাফল্য অর্জন করা খুবই কঠিন হয়ে যাবে।

শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সাপোর্ট ব্যাবস্থা

শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন টপিক ক্লাসের পরেও আরো বিস্তারিত জানতে চায়। ক্লাসে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট করার সময় কোন জায়গায় আটকে যেতে পারে। এই সময় একটু সাপোর্ট হলে তারা কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারেন। আবার কোর্স শেষে ক্লায়েন্ট এর কাজ করার সময়েও সাপোর্ট প্রয়োজন হয়। তাই শিখবে সবাই তার সকল শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সাপোর্ট ব্যাবস্থার আয়োজন রেখেছে। এই সাপোর্ট লাইফটাইম সম্পুর্ন বিনামূল্যে প্রদান করা হবে।

অনলাইন লাইভ সাপোর্ট

প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত সাপোর্ট লিঙ্কে ক্লিক করে সাপোর্ট প্ল্যাটফর্মে জয়েন করতে পারবেন এবং সেখানে মেন্টর থাকবেন লাইভ সাপোর্ট দেওয়ার জন্য। নিজের স্ক্রিন শেয়ার করে বা স্কাইপ কলের মাধ্যমেও মেন্টর সাহায্য করবে।

অফলাইন সাপোর্ট

শিখবে সবাই এর যে কোন শিক্ষার্থী, সে অনলাইন লাইভ কোর্সের হোক কিংবা অফলাইন কোর্সের হোক। শিখবে সবাই এর যে কোন ক্যাম্পাসে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত সাপোর্টের জন্য আসতে পারবেন। ক্যাম্পাসে সাপোর্ট সেন্টারে বসে মেন্টর এর কাছ থেকে সরাসরি কাজ বুঝে নেওয়া যাবে।

আমাদের শিক্ষার্থীদের সফলতার গল্প

আমাদের শিক্ষার্থীরা কোথায় কাজ করেন?

সফল ভাবে স্কিল্ল ডেভ্লপমেন্ট এবং সফট স্কিল এর পরে আমাদের স্টুডেন্টরা পপুলার অনলাইন মারকেটপ্লেস আপওয়ার্ক (Upwork), ফাইবার (Fiverr), পিপল-পার-আওয়ার (PPH) সহ আরও অনেক জায়গায় সফল ভাবে ফ্রিলাঞ্চিং এর কাজের সাথে জড়িত। এছারাও লোকাল মার্কেটে ভালো পরিমাণ কাজের সাথেও জড়িত আছেন অনেকেই। আমাদের কোর্স গুলো ঠিক এমন ভাবে গঠিত যাতে একজন স্টুডেন্টরা অনলাইন এবং অফলাইন মার্কেটের জন্য নিজেদেরকে প্রস্তুত করে নিতে পারেন।

ফাইভার

নতুন শিক্ষার্থীদের জন্য ফাইভার মার্কেটপ্লেস খুবই জনপ্রিয়। কারন এখানে নতুনরা সহজেই ছোট ছোট কাজ দিয়ে নিজের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। এখানে কাজের নির্দিষ্ট প্যাকেজ বা গিগ করা থাকে যা ক্ল্যায়েন্ট এবং ফ্রিল্যান্সার উভয়ের জন্যই সুবিধাজনক।

আপওয়ার্ক

আপওয়ার্ক একটি বড় আন্তর্জাতিক কাজের বাজার। এখানে বড় বড় কোম্পানি গুলো আউটসোর্সিং করে কাজ করায়। আমাদের অনেক শিক্ষার্থী এই মার্কেটে টপ রেটেড ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করছেন। তুলনামূলক এখানে কাজের মূল্য একটু বেশী পাওয়া যায়।

রিমোট জব

বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে ভালো মানের কাজ সরবরাহ করার ফলে আমাদের শিক্ষার্থীদের সাথে ক্লায়েন্ট এর অনেক ভালো সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়। মার্কেটপ্লেসের বাইরেও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অনেক ক্লায়েন্ট এর কাজ করে থাকেন আমাদের শিক্ষার্থীরা। এর ফলে অনেক ক্ল্যায়েন্ট মাসিক চুক্তি করে কাজ করায় যেটা চাকুরীর মতো।

লোকাল জব

আন্তর্জাতিক বাজার ছাড়াও বাংলাদেশেও কিন্তু আইটির বিভিন্ন কাজ থাকে। মূলত দেশীয় ছোট এবং মাঝারী ব্যাবসায়ি প্রতিষ্ঠান গুলো আউটসোর্সিং করেই কাজ করায়। আমাদের অনেক শিক্ষার্থী এরকম লোকাল অনেক কাজ করে থাকেন। এখন মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সহজেই পেমেন্ট নেওয়া যায়। আবার চাইলে সরাসরি কথা বলেও অনেকে লোকাল বিভিন্ন প্রজেক্টে কাজ করছেন। এখানে সুবিধা হচ্ছে কাউকে কোন কমিশন দিতে হয় না যেটা উপরের সকল মাধ্যমেই প্রযোজ্য।

নিউজ কাভারেজ

প্রতিষ্ঠার পর থেকে আইটি সেক্টরে দক্ষতা উন্নয়নে সফলতার সাথে কাজ করছে দেশের শীর্ষস্থানীয় ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষন ইন্সটিটিউট শিখবে সবাই। এই দীর্ঘ পথচলায় প্রতিষ্ঠানটি পাশে পেয়েছে দেশের স্বনামধন্য প্রায় সকল সংবাদমাধ্যমকে। শিখবে সবাই এর পাশে থাকার জন্য এবং সর্বস্তরের মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য গনমাধ্যমের প্রতি রইলো কৃতজ্ঞতা।

কিভাবে শুরু করবেন?

শিখবে সবাইতে ভর্তি হতে ইচ্ছুক অনেকেই ভাবেন কিভাবে ভর্তি হবেন, ক্লাস করবেন, ক্লাসের প্রকৃয়াগুলো কি। এই প্রকৃয়াগুলো একদম সহজ এবং সুন্দর করে গড়ে তুলেছে শিখবে সবাই। আপনাদের বোঝার সুবিধার্থে এখানে সুন্দরভাবে তুলে ধরে হয়েছে।

আপনার পছন্দের কোর্সে পেমেন্ট করুন

আপনি যে কোর্সে ভর্তি হতে ইচ্ছুক, তার জন্য শুরুতেই পেমেন্ট করতে হবে। এই পেমেন্ট আপনি শিখবে সবাই এর যেকোনো অফিসে এসে করতে পারবেন। পাশাপাশি শিখবে সবাই এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি বিকাশ, রকেট অথবা নগদ ব্যবহার করেও বাসায় বসে পেমেন্ট করে মানি রিসিপ্ট পেতে পারেন। ঘরে-বাহিরে যেখানেই থাকেন না কেনো, খুব সহজেই আপনি এই প্রকৃয়া সম্পন্ন করতে পারেন।

আপনার ইমেইল চেক করুন

আপনি যদি ওয়েবসাইট অথবা বিকাশ/নগদ/রকেট ব্যবহার করে পেমেন্ট করেন, তাহলে ইমেইলে আপনার মানি রিসিপ্ট চলে যাবে। এছাড়াও আপনার ব্যাচের জন্য নির্ধারিত ফেসবুক গ্রুপ, ক্লাসের লিঙ্ক ইমেইলে দিয়ে দেয়া হবে। তাই, নিয়মিত ইমেইল চেক করুন।

নির্দিষ্ট সময়ে ক্লাস করুন

আপনাকে ইমেইলে দেয়া নির্ধারিত তারিখেই ক্লাস শুরু হবে। কোর্স করে ভালো কিছু শিখতে এবং সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে গড়ে উঠতে নিয়মিত ক্লাস এবং এসাইনমেন্ট এর বিকল্প নেই। তাই, মেন্টর নির্দেশনা মেনে চলতে চেষ্টা করুন এবং নিয়মিত ক্লাস করুন।

কম্পিউটারের নুন্যতম যোগ্যতা

মূলত যে কোন ডিভাইস যেমন ডেস্কটপ কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল কিংবা ট্যাব থেকেও আমাদের অনলাইন লাইভ ক্লাসে যোগ দিতে পারবেন। কিন্তু কাজ করার জন্য আপনার কম্পিউটার থাকা বাধ্যতামূলক। সর্বনিম্ন ৪ জিবি র‍্যাম এবং Core i3 প্রসেসর হলে কোর্সের কাজ গুলো করতে পারবেন। কিন্তু এর থেকে বেশী গতিসম্পন্ন কম্পিউটার হলে আপনার কাজ করতে সুবিধা হবে, কিন্তু বাধ্যতামূলক নয়।

যোগাযোগ করুন

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা কোন কিছু জানার থাকলে নির্দিধায় নিচের ফর্মটি পূরণ করুন। আমাদের দক্ষ প্রতিনিধি আপনাদের সকল প্রশ্নের সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবেন। মাঝে মধ্যে আমাদের প্রতিনিধি রা ব্যাস্ত থাকার কারণে আপনার প্রশ্নের উত্তর পেতে দেরি হলে আমরা তার জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। ততক্ষণে আপনি আমাদের ফেইসবুক পেইজ এবং ফেইসবুক গ্রুপ দেখতে থাকুন।