ফুল স্ট্যাক মোশন গ্রাফিক্স অনলাইন

  • কোর্সের মেয়াদ : ৫ মাস
  • কোর্স ফী : ২০০০০
  • ক্লাসের সময় : রাত ৮টা - ১০টা (রবি,বুধ)
  • ক্লাস শুরুর তারিখ : ১৪ই জুলাই ২০২১

অভিজ্ঞতা অর্জন হয় দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে। আর দক্ষতাই পারে সাফল্যের শিখরে পৌঁছে দিতে। তাই সময় নষ্ট না করি, দক্ষতা বৃদ্ধি করি।

ফুল স্ট্যাক মোশন গ্রাফিক্স অনলাইন

ডিজাইন ছাড়া ব্র্যান্ডিং, মার্কেটিং কিংবা প্রমোশন, কোনো কিছুই কল্পনা করা যায় না। আমাদের জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপে ডিজাইনের উপস্থিতি রয়েছে। শিক্ষার্থী, চাকুরীজীবী, ব্যবসায়ী সবারই কাজের প্রয়োজনে, পন্যের প্রচার-প্রসারের জন্য, সুন্দর করে প্রেজেন্টেশনের জন্য রয়েছে ডিজাইনের চাহিদা।

নাটক, সিনেমা, গান, বিজ্ঞাপন যেদিকেই যান না কেনো, সেখানেই মোশন গ্রাফিক্স এর উপস্থিতি রয়েছে। জব মার্কেটে মোশন গ্রাফিক ডিজাইনের অনেক চাহিদা থাকলেও দক্ষ লোকের সংকট রয়েই গিয়েছে। সবকিছু মাথায় রেখেই শিখবে সবাই মোশন গ্রাফিক ডিজাইন এর প্রশিক্ষন দিয়ে যাচ্ছে। এতে করে অনলাইন মার্কেট এর পাশাপাশি লোকাল জবেও দক্ষ ডিজাইনারের সংকট কিছুটা হলেও কমে আসবে।

৩০০++

গ্রাডুয়েটস

৪৮ ঘন্টা

ক্লাস আওয়ার্স

২৪

লেকচার

২৪/৭

অনলাইন সাপোর্ট

আমাদের কোর্স কারিকুলাম

এই কোর্সের শুরুতেই শিক্ষার্থীদের শিক্ষার্থীদের ইলাস্ট্রেটর এবং আফটার এফেক্টস সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করা হবে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শেখানো হবে টাইপোগ্রাফি, ২ডি এনিমেশন, ৩ডি ক্যামেরা মুভমেন্ট, লোগো এনিমেশন, ইন্ট্রো-আউট্রো, প্রমোশনাল ভিডিও ম্যাকিং, প্রোডাক্ট ভিডিও এবং ইউআই এনিমেশন।

এর পরেই দেখানো হবে কিভাবে মিডিয়া ইনকোডার সফটওয়্যার ব্যবহার করে একটি ভিডিও রেন্ডারিং করতে হয়। সবকিছুই বিস্তারিতভাবে দেখানো হবে যাতে করে প্রতিজন শিক্ষার্থী সুন্দর করে বুঝতে পারেন।

প্রিমিয়ার প্রো সফটওয়্যার এর মাধ্যমে দেখানো হবে কিভাবে একটি ভিডিও বানানোর সময় সিকোয়েন্সগুলো সাজিয়ে সম্পূর্ণ ভিডিও রেন্ডারিং করা হয়। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন। তবে এর জন্য প্রয়োজন নিয়মিত প্র্যাকটিস।

এরপর চলবে ফ্রিল্যান্সিং সেশন যেখানে সবচেয়ে জনপ্রিয় দুইটি মার্কেটপ্লেস ফাইভার এবং আপওয়ার্ক প্র্যাক্টিকালি শেখানো হবে। প্রজেক্ট ভিত্তিক লার্নিং এর মাধ্যমে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ফ্রিল্যান্সিং এ প্রবেশের আগেই তাদের পোর্টফলিও তৈরি করে নেয়া হবে।

  • আফটার ইফেক্টস

    ১ মাস

  • মিডিয়া ইনকোডার এবং প্রিমিয়ার প্রো

    ১ মাস

  • ফ্রিল্যান্সিং

    ১ মাস

  • এডোব ইলাস্ট্রেটর

    ১ মাস

  • ইলাস্ট্রেটর এবং ফটোশপ

    ১ মাস

এই কোর্সের শুরুতেই শিক্ষার্থীদের শিক্ষার্থীদের আফটার এফেক্টস সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করা হবে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের শেখানো হবে টাইপোগ্রাফি, ২ডি এনিমেশন, ৩ডি ক্যামেরা মুভমেন্ট, লোগো এনিমেশন, ইন্ট্রো-আউট্রো, প্রমোশনাল ভিডিও ম্যাকিং, প্রোডাক্ট ভিডিও এবং ইউআই এনিমেশন।

আফটার ইফেক্টস ব্যবহার করেই মোশন ভিডিও এর সম্পূর্ণ প্লট তৈরি করা হয়। তাই এখানে শিক্ষার্থীদের অনেক সময় নিয়ে সবকিছু বিস্তারিত বোঝানো হবে।

এখানে দেখানো হবে কিভাবে মিডিয়া ইনকোডার সফটওয়্যার ব্যবহার করে একটি ভিডিও রেন্ডারিং করতে হয়। সবকিছুই বিস্তারিতভাবে দেখানো হবে যাতে করে প্রতিজন শিক্ষার্থী সুন্দর করে বুঝতে পারেন।

প্রিমিয়ার প্রো সফটওয়্যার এর মাধ্যমে দেখানো হবে কিভাবে একটি ভিডিও বানানোর সময় সিকোয়েন্সগুলো সাজিয়ে সম্পূর্ণ ভিডিও রেন্ডারিং করা হয়। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন। তবে এর জন্য প্রয়োজন নিয়মিত প্র্যাকটিস।

ফ্রিল্যান্সিং সেশনে সবচেয়ে জনপ্রিয় দুইটি মার্কেটপ্লেস ফাইভার এবং আপওয়ার্ক প্র্যাক্টিকালি শেখানো হবে। প্রজেক্ট ভিত্তিক লার্নিং এর মাধ্যমে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ফ্রিল্যান্সিং এ প্রবেশের আগেই তাদের পোর্টফলিও তৈরি করে নেয়া হবে।

অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে মোশন গ্রাফিক ডিজাইনারদের অনেক চাহিদা রয়েছে। কাজের অনুপাতে অনেক ভালো পেমেন্টও এখানে পাওয়া যায়। তবে এখানে দক্ষ লোকের সংকট রয়েছে। তাই ফ্রিল্যান্সিং সেশনগুলোতে বিস্তারিত প্র্যাক্টিকালি দেখানো হবে যাতে করে শিক্ষার্থীরা তাদের অর্জিত জ্ঞান কাজে লাগাতে পারেন।

একদম শুরুতেই এডোব ইলাস্ট্রেটর নিয়ে কাজ করা হবে। এতে করে যে সকল শিক্ষার্থীর গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কে ধারনা কম থাকবে বা একদমই থাকবে না, তারা বেসিকটা ধরে নিতে পারবেন। বুঝতে পারবেন কিভাবে ডিজাইন কনসেপ্ট তৈরি করতে হয় এবং সফটওয়্যারে কাজ করতে হয়। যা পরবর্তীতে উনাদের সাহায্য করবে।

এডোব ইলাস্ট্রেটর মাধ্যমে কাজ করা হয় প্রিন্ট ম্যাটেরিয়াল নিয়ে। সাধারণত বিজনেস কার্ড, লেটারহেড, পোস্টার, ব্যানার, ফ্লায়ার, ব্রোশিউর, প্যাকেজিং ডিজাইন, সিভি ডিজাইন, লোগো ডিজাইন সহ আরো অনেক কাজ করা হয় ইলাস্ট্রেটর দিয়ে।

প্রতিটি লার্নিং হবে প্রজেক্ট বেইজড। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা কাজ শিখার সাথে সাথে বিভিন্ন টুলসের ব্যবহার সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাবেন, যা দীর্ঘদিন মনে রাখতে সাহায্য করবে। প্রজেক্ট বেইজ লার্নিং এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, শিক্ষার্থীরা স্কিল শেখার সাথে সাথে পোর্টফলিও এর জন্য ডিজাইন তৈরি করে ফেলতে পারেন। এতে করে অনেক এগিয়া যাওয়া যায়।

ফটোশপে দিয়ে ছবি এডিট, ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভাল সহ প্রিন্ট ম্যাটেরিয়াল এর কাজগুলো কিভাবে ফটোশপে করা হয়, তা শেখানো হয়। পাশাপাশি ইউআই ডিজাইন, পিএসডি টেমপ্লেট ডিজাইন এর কাজ করা হয় ফটোশপ দিয়ে।

কোর্সটা কি আপনার জন্য?

আপনি কি একজন শিক্ষার্থী?

পড়াশোনার পাশাপাশি আইটি কাজের বাস্তবমুখী শিক্ষা একজন শিক্ষার্থীর বর্তমান এবং ভবিষ্যতকে উজ্জ্বল করবে এবং বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বা কাজের সুযোগ করে দিবে এতে কোন সন্দেহ নেই। বরং পড়াশোনার পাশাপাশি অনেক শিক্ষার্থী বিভিন্ন খন্ডকালিন কাজ করতে চান। আইটি কোন কাজে দক্ষ হলে একজন শিক্ষার্থী পড়াশোনার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মার্কেটে কাজ করতে পারেন এবং নিজের পড়াশোনার খরচ নিজেই বহন করতে পারেন।

আপনি কি একজন গৃহিণী?

অনেক শিক্ষিত গৃহিণী গৃহস্থালির কাজের পাশাপাশি কোন কাজ করে আয় করতে চান। কিন্তু তারা চাইলেও নানা সমস্যার কারণে কোন চাকুরী বা ব্যাবসায় যুক্ত হতে পারেন না। তাদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং হতে পারে সবচেয়ে উপযুক্ত একটি মাধ্যম। একজন গৃহিণী আইটি দক্ষতা অর্জন করে প্রতিদিন বা সুবিধা মত সময়ে কাজ করে আয় এবং নিজের একটি পরিচয় তৈরি করতে পারেন।

আপনি কি একজন চাকুরীজীবী?

বর্তমানে চাকুরী করে অনেকেই হয়তো নিজের সকল প্রয়োজন মেটাতে হিমিশিম খাচ্ছে। অনেকে হয়তো চাকুরীই করতে চাচ্ছেন না, নিজের কিছু করতে চাচ্ছেন। অনেকে হয়তো চাকুরীর পরের সময় গুলো কাজে লাগাতে চাচ্ছেন। প্রতিদিন ৩/৪ ঘণ্টা সময় দিলে শিখবে সবাই এর যে কোন আইটি কোর্সের মাধ্যমে কাজ শিখে ফ্রিল্যান্সিং করে আপনার বাড়তি আয়ের চাহিদা মেটানো সম্ভব।

আপনি কি একজন উদ্যোক্তা?

আপনি যে কোন ব্যাবসা করেন না কেনো, আপনার বিভিন্ন আইটি কাজের প্রয়োজন হবেই। আপনার নিজের যদি ভালো কাজের আইডিয়া থাকে তবে সেটা অন্যের মাধ্যমে সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন। কিন্তু আপনি নিজে যদি কোন আইটি দক্ষতা না রাখেন, তাহলে বর্তমান সময়ে যে কোন ব্যাবসা বা নতুন কোন আইডিয়া নিয়ে কাজ করলে সাফল্য অর্জন করা খুবই কঠিন হয়ে যাবে।

শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সাপোর্ট ব্যাবস্থা

শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন টপিক ক্লাসের পরেও আরো বিস্তারিত জানতে চায়। ক্লাসে দেয়া এ্যাসাইনমেন্ট করার সময় কোন জায়গায় আটকে যেতে পারে। এই সময় একটু সাপোর্ট হলে তারা কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারেন। আবার কোর্স শেষে ক্লায়েন্ট এর কাজ করার সময়েও সাপোর্ট প্রয়োজন হয়। তাই শিখবে সবাই তার সকল শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সাপোর্ট ব্যাবস্থার আয়োজন রেখেছে। এই সাপোর্ট লাইফটাইম সম্পুর্ন বিনামূল্যে প্রদান করা হবে।

অনলাইন লাইভ সাপোর্ট

প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে শিক্ষার্থীরা নির্ধারিত সাপোর্ট লিঙ্কে ক্লিক করে সাপোর্ট প্ল্যাটফর্মে জয়েন করতে পারবেন এবং সেখানে মেন্টর থাকবেন লাইভ সাপোর্ট দেওয়ার জন্য। নিজের স্ক্রিন শেয়ার করে বা স্কাইপ কলের মাধ্যমেও মেন্টর সাহায্য করবে।

অফলাইন সাপোর্ট

শিখবে সবাই এর যে কোন শিক্ষার্থী, সে অনলাইন লাইভ কোর্সের হোক কিংবা অফলাইন কোর্সের হোক। শিখবে সবাই এর যে কোন ক্যাম্পাসে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত সাপোর্টের জন্য আসতে পারবেন। ক্যাম্পাসে সাপোর্ট সেন্টারে বসে মেন্টর এর কাছ থেকে সরাসরি কাজ বুঝে নেওয়া যাবে।

আমাদের শিক্ষার্থীদের সফলতার গল্প

অর্থহীন লেখা যার মাঝে আছে অনেক কিছু। হ্যাঁ, এই লেখার মাঝেই আছে অনেক কিছু। যদি তুমি মনে করো, এটা তোমার কাজে লাগবে, তাহলে তা লাগবে কাজে। নিজের ভাষায় লেখা দেখতে অভ্যস্ত হও। মনে রাখবে লেখা অর্থহীন হয়, যখন তুমি তাকে অর্থহীন মনে করো; আর লেখা অর্থবোধকতা তৈরি করে, যখন তুমি তাতে অর্থ ঢালো। যেকোনো লেখাই তোমার কাছে অর্থবোধকতা তৈরি করতে পারে, যদি তুমি সেখানে অর্থদ্যোতনা দেখতে পাও। …ছিদ্রান্বেষণ? না, তা হবে কেন?

আমাদের শিক্ষার্থীরা কোথায় কাজ করেন?

ফাইভার

নতুন শিক্ষার্থীদের জন্য ফাইভার মার্কেটপ্লেস খুবই জনপ্রিয়। কারন এখানে নতুনরা সহজেই ছোট ছোট কাজ দিয়ে নিজের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। এখানে কাজের নির্দিষ্ট প্যাকেজ বা গিগ করা থাকে যা ক্ল্যায়েন্ট এবং ফ্রিল্যান্সার উভয়ের জন্যই সুবিধাজনক। শুধু ছোট কাজ নয়, পর্যায়ক্রমে এখানে বড় বড় কাজ ও পেতে শুরু করেন ফ্রিল্যান্সার রা। আমাদের শিক্ষার্থীরা গড়ে প্রতি মাসে প্রায় ৪০০ ডলার এর মতো আয় করে থাকেন।

আপওয়ার্ক

আপওয়ার্ক একটি বড় আন্তর্জাতিক কাজের বাজার। এখানে বড় বড় কোম্পানি গুলো আউটসোর্সিং করে কাজ করায়। আমাদের অনেক শিক্ষার্থী এই মার্কেটে টপ রেটেড ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করছেন। তুলনামূলক এখানে কাজের মূল্য একটু বেশী পাওয়া যায়।

রিমোট জব

বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে ভালো মানের কাজ সরবরাহ করার ফলে আমাদের শিক্ষার্থীদের সাথে ক্লায়েন্ট এর অনেক ভালো সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়। মার্কেটপ্লেসের বাইরেও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অনেক ক্লায়েন্ট এর কাজ করে থাকেন আমাদের শিক্ষার্থীরা। এর ফলে অনেক ক্ল্যায়েন্ট মাসিক চুক্তি করে কাজ করায় যেটা চাকুরীর মতো। আমাদের শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে বসেই সেই সকল ক্লায়েন্ট দের ফুল টাইম বা চুক্তিবদ্ধ কাজ করে থাকেন যাকে বলা হয় রিমোট জব। রিমোট জবে একজন ফ্রিল্যান্সার গড়ে মাসে ৮০০ থেকে ১০০০ ডলার করে থাকে।

লোকাল জব

আন্তর্জাতিক বাজার ছাড়াও বাংলাদেশেও কিন্তু আইটির বিভিন্ন কাজ থাকে। মূলত দেশীয় ছোট এবং মাঝারী ব্যাবসায়ি প্রতিষ্ঠান গুলো আউটসোর্সিং করেই কাজ করায়। আমাদের অনেক শিক্ষার্থী এরকম লোকাল অনেক কাজ করে থাকেন। এখন মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে সহজেই পেমেন্ট নেওয়া যায়। আবার চাইলে সরাসরি কথা বলেও অনেকে লোকাল বিভিন্ন প্রজেক্টে কাজ করছেন। এখানে সুবিধা হচ্ছে কাউকে কোন কমিশন দিতে হয় না যেটা উপরের সকল মাধ্যমেই প্রযোজ্য।

নিউজ কাভারেজ

কোর্স মেন্টর

ইমরান হোসেন সজীব, শিখবে সবাই এর গ্রাফিক এন্ড ইউআই ডিজাইন, আফটার ইফেক্টস এবং মোশন গ্রাফিক মেন্টর। দীর্ঘ ৮ বছর ধরে তিনি এই সেক্টরে কাজ করছেন। লোকাল জবের পাশাপাশি শীর্ষস্থানীয় অনলাইন মার্কেটপ্লেসে “আপওয়ার্কে” টপ রেটেড প্লাস ব্যাজ নিয়ে কাজ করছেন।

এডোব ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর, এক্সডি, প্রিমিয়ার প্রো, ইডিয়াস, ইনডিজাইন এবং আফটার ইফেক্টস এ অনেক দক্ষতার স্বাক্ষর তিনি রেখেছেন। এছাড়াও সিনেমা ৪ডি এবং ফটোগ্রাফি নিয়ে কাজ করছেন তিনি।

পেশাগত জীবনে তিনি একমি আইটি এবং আমার আইটি নামক দুইটি স্বনামধন্য কোম্পানীতে ডিজাইনার হিসেবে কাজ করেছেন।

ইমরান হোসেন সজীব

প্রশিক্ষণ দিয়েছেন : ৩০০+ শিক্ষার্থী

ইমরান হোসেন সজীব, শিখবে সবাই এর গ্রাফিক এন্ড ইউআই ডিজাইন, আফটার ইফেক্টস এবং মোশন গ্রাফিক মেন্টর। দীর্ঘ ৮ বছর ধরে তিনি এই সেক্টরে কাজ করছেন। লোকাল জবের পাশাপাশি শীর্ষস্থানীয় অনলাইন মার্কেটপ্লেসে “আপওয়ার্কে” টপ রেটেড প্লাস ব্যাজ নিয়ে কাজ করছেন।

এডোব ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর, এক্সডি, প্রিমিয়ার প্রো, ইডিয়াস, ইনডিজাইন এবং আফটার ইফেক্টস এ অনেক দক্ষতার স্বাক্ষর তিনি রেখেছেন। এছাড়াও সিনেমা ৪ডি এবং ফটোগ্রাফি নিয়ে কাজ করছেন তিনি।

পেশাগত জীবনে তিনি একমি আইটি এবং আমার আইটি নামক দুইটি স্বনামধন্য কোম্পানীতে ডিজাইনার হিসেবে কাজ করেছেন।

 

কিভাবে শুরু করবেন?

আপনার পছন্দের কোর্সে পেমেন্ট করুন

অর্থহীন লেখা যার মাঝে আছে অনেক কিছু। হ্যাঁ, এই লেখার মাঝেই আছে অনেক কিছু। যদি তুমি মনে করো, এটা তোমার কাজে লাগবে, তাহলে তা লাগবে কাজে। নিজের ভাষায় লেখা দেখতে অভ্যস্ত হও। মনে রাখবে লেখা অর্থহীন হয়, যখন তুমি তাকে অর্থহীন মনে করো; আর লেখা অর্থবোধকতা তৈরি করে, যখন

আপনার ইমেইলে ক্লাসের লিঙ্ক দেখুন

অর্থহীন লেখা যার মাঝে আছে অনেক কিছু। হ্যাঁ, এই লেখার মাঝেই আছে অনেক কিছু। যদি তুমি মনে করো, এটা তোমার কাজে লাগবে, তাহলে তা লাগবে কাজে। নিজের ভাষায় লেখা দেখতে অভ্যস্ত হও। মনে রাখবে লেখা অর্থহীন হয়, যখন তুমি তাকে অর্থহীন মনে করো; আর লেখা অর্থবোধকতা তৈরি করে, যখন

নির্দিষ্ট সময়ে ক্লাস করুন

অর্থহীন লেখা যার মাঝে আছে অনেক কিছু। হ্যাঁ, এই লেখার মাঝেই আছে অনেক কিছু। যদি তুমি মনে করো, এটা তোমার কাজে লাগবে, তাহলে তা লাগবে কাজে। নিজের ভাষায় লেখা দেখতে অভ্যস্ত হও। মনে রাখবে লেখা অর্থহীন হয়, যখন তুমি তাকে অর্থহীন মনে করো; আর লেখা অর্থবোধকতা তৈরি করে, যখন

কম্পিউটারের নুন্যতম যোগ্যতা

এই কোর্স করার জন্য একজন শিক্ষার্থীকে অবশ্যই গ্রাফিক ডিজাইন এর ব্যাসিক জানতে হবে। সেই সাথে এডোব ইলাস্ট্রেটর এবং এডোব ফটোশপ সফটওয়্যার পরিচালনায় দক্ষতা থাকতে হবে।

কম্পিউটার কনফিগারেশন হতে হবে নূন্যতম কোর আই থ্রি - ৫ম জেনারেশন প্রসেসর, ৮ গিবি র‍্যাম এবং একটি এসএসডি ড্রাইভ।

যোগাযোগ করুন

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা কোন কিছু জানার থাকলে নির্দিধায় নিচের ফর্মটি পূরণ করুন। আমাদের দক্ষ প্রতিনিধি আপনাদের সকল প্রশ্নের সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবেন। মাঝে মধ্যে আমাদের প্রতিনিধি রা ব্যাস্ত থাকার কারণে আপনার প্রশ্নের উত্তর পেতে দেরি হলে আমরা তার জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। ততক্ষণে আপনি আমাদের ফেইসবুক পেইজ এবং ফেইসবুক গ্রুপ দেখতে থাকুন।

আপনার বার্তা লেখুন
আপনার নাম
আপনার ঠিকানা
মোবাইল নাম্বার
আপনার ইমেইল
ভর্তি হোন